গর্ভাবস্থায় কিভাবে ধূমপান ছাড়বেন

গর্ভাবস্থায় কিভাবে ধূমপান ছাড়বেন

 

এই নিবন্ধটি বর্তমানে IAP বিশেষজ্ঞদের দ্বারা পর্যালোচনা অধীনে; এখনো সম্পাদিত এবং অনুমোদিত এবং প্রযুক্তিগত এবং ভাষা ত্রুটি থাকতে পারে। দয়া করে এখানে ক্লিক করে সংশোধন এবং অনুমোদিত ইংরেজি সংস্করণ পড়ুন।

ধূমপান প্রথমত শুধু আপনাকে গর্ভবতী হতে বাধা দেয় তা নয় কিন্তু আপনি যদি গর্ভাবস্থায়ও ধূমপান চালিয়ে যান তবে মা এবং সন্তান উভয়ের জন্য তা গুরুতর পরিণতি বয়ে আনতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ধূমপান মা ও শিশু উভয়ের জন্য মারাত্মক হতে পারে এমন জটিলতার সম্ভাবনা উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়িয়ে দেয় – এর ফলে গর্ভপাত এবং মৃত শিশুর জন্ম ঘটে।

যাহোক, ধূমপায়ী নারীদের সংখ্যা ১৯৮০ সালে ৫.৩ মিলিয়ন থেকে ২০১২ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২.৭ মিলিয়নে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) অনুসারে, বিশ্বের ধূমপায়ীদের মধ্যে ১২% লোকের বসবাস ভারতে। ভারতে তামাকের কারণে প্রতিবছর ১ মিলিয়নেরও বেশি লোক মারা যায়।

প্রতিটি সিগারেটে ৪০০০এর অধিক ক্ষতিকারক রাসায়নিক যেমন নিকোটিন, কার্বন মনোক্সাইড এবং টার রয়েছে এছাড়া দ্বিতীয় পর্যায়ের ধোঁয়াও একটি কার্সিনোজেন। এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে, প্রতিবার আপনি ধূমপান করে আপনার অনাগত শিশুর উল্লেখযোগ্য ক্ষতি করছেন কারণ সিগারেট আপনার শিশুকে জীবনধারণের প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সরবরাহে বাধা সৃষ্টি করতে পারে। এটা তাদের হৃদপিণ্ডের

উপর অতিরিক্ত চাপ ফেলে এবং হৃদকম্পন দ্রুত হয়।

ধূমপান দ্বারা সৃষ্ট ত্রুটিসমুহ

এটা আপনাকে বুঝতে হবে যে যখন আপনি ধূমপান করেন, সাথে সাথে আপনার শিশুও করে। গর্ভাবস্থায় ধূমপানের কারণে কিছু গুরুতর জটিলতা দেখা দেয়, যেমনঃ

  • গর্ভপাত এবং মৃত শিশুর জন্ম – ধূমপান ভ্রূণের জিনগত ত্রুটি সৃষ্টির জন্য পরিচিত, এটা এতটাই ক্ষতিকারক যে দ্বিতীয় পর্যায়ের/পরোক্ষ ধোঁয়াও গর্ভপাত এবং মৃত শিশু জন্ম দেওয়ার জন্য যথেষ্ট!
  • ইকটোপিক গর্ভাবস্থা – দেখা গেছে যে ধূমপানের ফলে ফেলোপিয়ান টিউবের (গর্ভনালী) সংকোচনের কারণে ইকটোপিক গর্ভাবস্থা হতে পারে। এই ধরনের গর্ভধারণ টেকসই নয় এবং মায়ের জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ। তাই জটিলতা এড়াতে ভ্রূণকে অবশ্যই অপসারণ করা উচিত।
  • প্ল্যাসেন্টার ছেদন – একটি সুস্থ প্ল্যাসেন্টা (গর্ভফুল) ছাড়া একটি গর্ভাবস্থা কার্যকর হতে পারে না। ধূমপানের ফলে গর্ভাশয় থেকে প্লাসেন্টার বিচ্ছেদ ঘটে। এতে গুরুতর রক্তপাত ঘটে এবং মা ও শিশুর উভয়ের জীবনের জন্য হুমকিজনক অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে।
  • প্লাসেন্টা প্রিভিয়া – এটি এমন একটি অবস্থা যখন গর্ভের উপরের দিকে বৃদ্ধির পরিবর্তে প্লাসেন্টা জরায়ুর নিচের অংশে থাকে। এটি সারভিক্সকে (জরায়ুর গ্রীবা) পুরোপুরি খুলে দেয়ায় রক্তস্রাব হয় এবং ভ্রূণকে গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি প্রাপ্তির মাধ্যমে ভালভাবে বৃদ্ধিতে বাঁধা প্রদান করে।
  • অকাল প্রসব – ধূমপানের ফলে শিশুর জন্ম খুব তাড়াতাড়ি হতে পারে, যা কিছু আজীবন জটিলতার সৃষ্টি করতে পারে যেমন দৃষ্টি ও শ্রবণ দুর্বলতা, মানসিক প্রতিবন্ধকতা, শিক্ষণ এবং আচরণগত সমস্যা এবং এমনকি মৃত্যুও ঘটতে পারে।
  • জন্মকালীন কম ওজন – গর্ভাবস্থায় ধূমপান আপনার শিশুর জন্মকালীন ওজন কম হতে পারে, যা বিলম্বিত বিকাশ, মস্তিস্কের পক্ষাঘাত এবং অন্যান্য শ্রবণ এবং দৃষ্টি সম্পর্কিত রোগের মত জটিলতা সৃষ্টি করে এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।
  • জন্মগত ত্রুটি – ধূমপানের কারণে জন্মগত হৃদরোগ এবং হৃদপিণ্ডের আকারের সাথে সম্পর্কযুক্ত কিছু ত্রুটি সৃষ্টি হয়।
  • SIDS – গবেষণায় দেখা গেছে যে ধূমপান হল হঠাৎ শিশু মৃত্যু সিন্ড্রোমের প্রধান কারণ।

কিভাবে ছাড়া যায়

এখন আপনি জানেন যে ধূমপানের ফলে কি কি বিপজ্জনক ও জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ রোগ হতে পারে; ধূমপান ত্যাগ করা হল সবচেয়ে ভাল জিনিসগুলির মধ্যে একটি যা আপনি নিজের জন্য করতে পারেন এবং এটি হবে আপনার সন্তানের জন্য সেরা উপহার । ধূমপান ছাড়তে আপনাকে সাহায্যের জন্য এখানে কিছু উপায় দেয়া হলঃ

  • কোল্ড টার্কি পদ্ধতি – যদিও ধূমপান ছাড়তে সাহায্য করার জন্য অসংখ্য উপায় রয়েছে, তবে কোল্ড টার্কি পদ্ধতি অবলম্বন সবচেয়ে ভাল উপায়। আপনি যদি মনে করেন যে আপনি ধীরে ধীরে নিজেকে গুটিয়ে ফেলতে পারবেন, তবে এটার সম্ভাবনা আছে যে আপনি খুব শীঘ্রই একই ভাবে ধূমপানে ফিরে যাবেন।
  • অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট বা অবসাদরোধী ওষুধ – আপনি যদি চিকিত্সকের সাথে পরামর্শ করেন, তবে তিনি আপনাকে এন্টিডিপ্রেসেন্ট লিখে দিতে পারেন, যা প্রায়ই ধূমপানরোধী ওষুধ হিসাবে ব্যবহৃত হয়। চিকিত্সককে অবশ্যই আপনি গর্ভাবস্থার কোন পর্যায়ে আছেন তা জানানো গুরুত্বপূর্ণ।
  • কাউন্সেলিং/পরামর্শ – এমনও হতে পারে যে উপরে উল্লিখিত কোন পদ্ধতিই আপনার জন্য কাজ করছে না। সেক্ষেত্রে, আপনার কিছু ভেতরের ব্যক্তিগত সমস্যা সমাধানে কারও ব্যক্তিগত সাহায্য চাইতে পারেন।
  • সাপোর্ট গ্রুপ – এছাড়াও বেশ কিছু সাপোর্ট গ্রুপ রয়েছে কারণ কখনও কখনও ধূমপান ছাড়ার পথে আপনার খুব একাকী মনে হতে পারে। অন্যরাও যারা ছাড়ার চেষ্টা করছে তারা আপনাকে অনুপ্রেরণা দিতে পারে। NIMHANS এর একটি টোবাকো এসোসিয়েশন ক্লিনিক আছে যেটি আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

স্বাস্থ্যকর অভ্যাস

যদিও ধূমপান ত্যাগ হল আপনার নিজেকে দেয়া সেরা উপহার, এর সাথে সাথে কিছু স্বাস্থ্যকর অভ্যাস গড়ে তুললে তা আপনার জন্য সহায়ক হবেঃ

  • হাঁটা শুরু করুন, এটি সামগ্রিকভাবে আপনার স্বাস্থ্যকেও উন্নত করবে।
  • পাঠাভ্যাস করুন
  • আপনি ধূমপানের নেশা জাগলে চিনিমুক্ত গাম চিবাতে পারেন। এটি আপনার মুখকে ব্যস্ত রাখবে এবং মনকে ধূমপান থেকে সরিয়ে নিতে সাহায্য করবে
  • ধূমপানের ইচ্ছা জাগার কারণগুলি চিহ্নিত করুন এবং সিগারেট ধরা এড়াতে সেগুলি সচেতনভাবে মোকাবেলা করুন।
  • একটি শক্তিশালী সাপোর্ট সিস্টেম থাকলে তা আপনাকে এই প্রক্রিয়ায় সাহায্য করবে কারণ এটি এমন অভ্যাস নয় যে আপনি একটি দিনেই ছেড়ে দিতে পারবেন।
  • ধূমপান ত্যাগের সিদ্ধান্ত কার্যকরের প্রথম পদক্ষেপ নেয়ার জন্য নিজেকে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করুন।